চট্টগ্রামেও ঘুরেফিরে বিএনপির পুরনোরাই মনোনয়ন পেলেন

251

 

নিউজ ডেস্ক..

দলীয় মনোনয়ন কে পাচ্ছেন? এর উত্তর জানতে গতকাল সকাল থেকেই গুলশানস্থ চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ের দিকে তাকিয়েছিলেন বিএনপির চট্টগ্রামের নেতারা। সকাল গড়িয়ে দুপুর, অতঃপর মধ্যরাত। তবু জানা যায় নি। অবশ্য সেই অপেক্ষার প্রহর শেষ হচ্ছে আজ। কারণ চট্টগ্রামের ১৬ আসনের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে চূড়ান্ত হওয়াদের কাছে প্রত্যয়নপত্রের চিঠি দেয়া হবে আজ। তবে জানা গেছে পুরনোরাই পাচ্ছেন মনোনয়ন।
এদিকে চট্টগ্রাম বিভাগের সব প্রার্থীদের নাম ঘোষণা না করলেও গতকাল সকালে দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার জন্য তিনটি আসনের মনোনয়নের চিঠি তার প্রতিনিধির হাতে তুলে দেয়া হয়। এর মধ্য দিয়ে দলের প্রার্থীদের হাতে প্রত্যয়নপত্রের চিঠি দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়। সর্বশেষ গতরাত পৌনে ১ টায় এ রিপোর্ট লেখাকালীন সময়ে রংপুর, রাজশাহী, বরিশাল এবং খুলনা বিভাগের প্রার্থীদের চিঠি দেয়া হলেও চট্টগ্রামের ১৬ আসনের প্রার্থীদের চিঠি দেয়া হয় নি। রাত একটার সময়ও চট্টগ্রামের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা গুলশান কার্যালয়ে অবস্থান করছিলেন।
চট্টগ্রামের প্রার্থীদের চিঠি দেয়া না হলেও চট্টগ্রামের ১৬ আসনে চূড়ান্ত হওয়া দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের নাম দলটির বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রটি জানায়, নগরীর চারটি আসনে একক প্রার্থী রাখা হয়েছে। উপজেলা পর্যায়ের আসনগুলোর মধ্যে কয়েকটিতে একক এবং কোনোটিতে একাধিক প্রার্থী রাখা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে দলটির সিনিয়র নেতারা বলছেন, ‘মামলা বা অন্য কোনো প্রতিবন্ধকতার কারণে প্রাথমিকভাবে চূড়ান্ত মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিতে না পারার শংকা থেকেই বিকল্প রাখা হচ্ছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, নগরীর চারটি আসনের মধ্যে চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চান্দগাঁও- পাঁচলাইশ ও বায়েজিদ (আংশিক) আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খান, চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী ও বাকলিয়া) আসনে নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন, চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং-পাহাড়তলী-হালিশহর-খুলশী) আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান এবং চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর, পতেঙ্গা, ডবলমুরিং, ইপিজেড ও সদরঘাট) আসনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়েছে।
এছাড়া চট্টগ্রাম-১ (মিসরসরাই) আসনে উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আমিন, চট্টগ্রাম-২ (ফটিছড়িতে) আসনে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা গোলাম আকবর খোন্দকার, চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনে সাবেক সাংসদ মোস্তফা কামাল পাশা, চট্টগ্রাম-৪ আসনে (সীতাকুণ্ড, পাহাড়তলী-আকবর শাহ আংশিক) বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব লায়ন আসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনে দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ গাজী মোহাম্মদ শাহজাহান জুয়েল, চট্টগ্রাম -১৩ (আনোয়ারা-কর্ণফুলী) আসনে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সরওয়ার জামাল নিজাম এবং চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আসনে দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব জাফরুল ইসলাম চৌধুরীকে চূড়ান্ত করা হয়েছে।
তবে এসব আসনের মধ্যে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে পটিয়ায় দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এনামুল হক এনাম, সীতাকুণ্ডে সাবেক মন্ত্রী ও সাংসদ প্রয়াত এল কে সিদ্দিকীর ছোট ভাই এ ওয়াই বি আই সিদ্দিকীকে মনোনয়নের চিঠি দেয়া হতে পারে।
এছাড়া চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনটি শরীক দল ‘বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টিকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে এই আসনে দলীয় মনোনয়নের চিঠি দেয়া হতে পারে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীনকে। কল্যাণ পার্টিকে ঢাকার কোন একটি আসনে মনোনয়ন দেয়ার চেষ্টা করছে বিএনপি।
অবশ্য তা নাকচ করে দিয়ে ‘বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি’ চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব:) ঈসয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বীর প্রতীক গতকাল সন্ধ্যায় দৈনিক আজাদীকে বলেন, ‘এই মাত্র জোটের সঙ্গে বৈঠক শেষ করলাম। হাটহাজারী আসনটি আমাদের দেয়া হয়েছে। এটা চূড়ান্ত। এই আসনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন বলেও জানান তিনি।’
এদিকে গত রাত পর্যন্ত চট্টগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া) আসনে কাকে মনোনয়ন দেয়া হবে সেটি চূড়ান্ত হয় নি। ওই আসনে বিএনপির প্রয়াত নেতা ও যুদ্ধাপারাধী হিসেবে ফাঁসি হওয়া সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ছেলে হুম্মাম কাদেরকে মনোনয়ন দিতে চায় বিএনপি। তবে এই আসনটি দাবি করছেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) । তবে চট্টগ্রাম-১৪ আসন (চন্দনাইশ ও সাতকানিয়া আংশিক) এলডিপিকে ছাড় দেয়া হয়েছে। সেখানে দলটির সভাপতি কর্নেল (অব.) ড. অলি আহমদ বীর বিক্রম বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হবেন। এছাড়া চট্টগ্রাম-১৫ (লোহাগড়া ও সাতকানিয়া আংশিক) আসনটি জামায়াত ইসলামকে ছাড় দিবে বিএনপি।
এদিকে নগরীর চার সংসদীয় আসনের প্রার্থীদের পক্ষে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যয়নপত্রের চিঠি সংগ্রহ করতে রাজধানীর গুলশানস্থ বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এস এম সাইফুল আলম। তিনি গত রাত সোয়া দশটায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় মুঠোফোনে বলেন, ‘চট্টগ্রাম বিভাগের তালিকা আজ প্রকাশ করার সম্ভাবনা কম। করলেও মধ্য রাত হয়ে যেতে পারে।’
বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা গোলাম আকবর খোন্দকার গত রাতে বলেন, ‘চট্টগ্রাম বিভাগের প্রার্থীদের চিঠি দেয়া হবে আগামীকাল (আজ) সকালে।’ একই বক্তব্য ছিল চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এনামুল হক এনামেরও।
ওদিকে কঙবাজার-১ হাসিনা আহমেদ, কঙবাজার-৩ লুৎফর রহমান কাজল, কঙবাজার-৪ শাহজাহান চৌধুরী ও মো. সালাহ্‌উদ্দিন, বান্দরবান- সাচিং প্রু জেরি ও উম্মে কুলসুম সুলতানা, রাঙামাটি- দীপেন দেওয়ান ও মনি স্বপন দেওয়ান, খাগড়াছড়িতে আব্দুল ওয়াদুদ ভূইয়াকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

সূত্র দৈনিক আজাদী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here