বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালক হলেন মিরসরাইয়ের সাহাব উদ্দীন

182

মিরসরাই প্রতিনিধি
বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালক পদে পদোন্নতি পেয়েছেন চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার কৃতি সন্তান আবু ছালেহ মুহম্মদ সাহাব উদ্দীন। পদোন্নতির পূর্বে তিনি বৈদেশিক মুদ্রা বিনিয়োগ বিভাগে অতিরিক্ত পরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এ বিভাগে কর্মরত অবস্থায় তিনি দেশে বিদেশী বিনিয়োগ আকর্ষণের লক্ষ্যে নীতিমালা সংস্কার ও উদারীকরণ, নীতিমালা বাস্তবায়য়ে অংশীজনদের সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং দেশী-বিদেশী বিভিন্ন ফোরাম ও বিদেশী বিনিয়োগকারীদের নিকট বাংলাদেশের আকর্ষণীয় নীতিমালা উপস্থাাপনে অবদান রেখে প্রশংশিত হয়েছেন।
তিনি ১৯৯৯ সালে সহকারী পরিচালক হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকে যোগদান করেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের ব্যাংক পরিদর্শন বিভাগ ও বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগে তাঁর কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতা রয়েছে। চট্টগ্রামের ব্যাংকারদের নিকট সুপিরিচিত সাহাব উদ্দীন কেন্দ্রীয় ব্যাংকে কর্মজীবনের শুরুতে বাংলাদেশ ব্যাংক, চট্টগ্রাম অফিসে কর্মরত অবস্থায় ব্যাংক পরিদর্শন ও বৈদেশিক মুদ্রা নীতি সংক্রান্ত কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট ছিলেন।
তিনি চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয় হতে অর্থনীতি বিষয়ে সম্মানসহ ¯œাতক ও ¯œাতত্তোর ডিগ্রী অর্জন করেন। বাংলাদেশ ব্যাংকে যোগদানের পর বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) হতে ব্যাংক ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ¯œাতত্তোর ডিগ্রী অর্জন করেন এবং কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফলের জন্য স্বর্ণ পদক প্রাপ্ত হন। ইনস্টিটিউট অব ব্যাংকার্স (আইবিবি) হতে ব্যাংকিং ডিপ্লোমা সম্মন্ন করেন।
মিরসরাই উপজেলার নিজ গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যাপীঠ- রহমতাবাদ সরকারী প্রাথমিক স্কুল- এ তাঁর শিক্ষা জীবনের হাতে খড়ি। অতঃপর একই উপজেলার বামন সুন্দর এফ এ উচ্চ বিদ্যালয় হতে মাধ্যমিক ও মিরসরাই ডিগ্রী কলেজ হতে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। বামন সুন্দর এফ এ উচ্চ বিদ্যালয় হতে অষ্টম শ্রেণীতে সরকারী বৃত্তি প্রাপ্ত হন।
বাংলাদেশ ব্যাংক প্রশিক্ষণ একাডেমী (বিবিটিএ) হতে বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ গ্রহণকারী এ কেন্দ্রীয় ব্যাংকার দেশী-বিদেশী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কর্তৃক আয়োজিত ব্যাংক, ফাইনান্স ও অর্থনীতি বিষয়ে স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদী প্রশিক্ষণ গ্রহন করেন। তার কর্মাশিয়াল ব্যাংকে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে। ৯৮ এর বিআরসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে রূপালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার হিসেবে কাজ করেন এবং এমবিএম ডিগ্রীর অংশ হিসেবে ইস্টার্ণ ব্যাংক লিঃ এ ইন্টার্ণশীপ করেন।
শিক্ষা জীবনে ভাল ফলাফল অর্জনকারী এ কর্মকর্তা ব্যাংকিং ক্যারিয়ারের কৃতিত্বের পাশাপাশি শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ প্রদানেও পরিচিত লাভ করেন। বাংলাদেশ ব্যাংক প্রশিক্ষণ একাডেমী (বিবিটিএ) ও বাংলাদেশ ইনস্টিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম)সহ বিভিন্ন ব্যাংকের প্রশিক্ষণ সেন্টারে নিয়মিত প্রশিক্ষক হিসেবে পাঠদান করেন। খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে তিনি ইনস্টিটিউট অব সাইন্স এন্ড টেকনোলোজি (ইউএসটিসি), চট্টগ্রাম ও আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম এর সাথে দীর্ঘ দিন সংযুক্ত ছিলেন। তিনি ১৮তম বিসিএস এ শিক্ষা ক্যাডারে জয়পুর হাট হাজী মহসিন কলেজে প্রভাষক হিসেবে, তৎপূর্বে চট্টগ্রামমের ফজলুল হাজেরা কলেজে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষা দান করেন।
আইবিবি আয়োজিত চট্টগ্রাম অঞ্চলে ব্যাংকিং ডিপ্লোমা কোচিং এ প্রশিক্ষদাতা ছিলেন এবং বর্তমানে তিনি ব্যাংকিং ডিপ্লোমা এর পরীক্ষক।
শিক্ষা-প্রশিক্ষন, দাপ্তরিক ও ব্যাক্তিগত প্রয়োজনে তিনি সুইজারল্যান্ড, সিংগাপুর, ভারত, পাকিস্থান, শ্রীলংকা, মিয়ানমার, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, কম্বোডিয়া, থাইল্যান্ড, সৌদি আরব সফর করেন।
তিনি মিরসরাই উপজেলার মিঠানালা ইউনিয়নের রহমতাদ গ্রামের একটি মুসলিম পরিবারে জম্ম গ্রহন করেন।
তাঁর পিতা মরহুম মোঃ আবুল বাশার একজন সমাজকর্মী ছিলেন। মাতা মোছাম্মৎ চেমনা আফরোজ একজন গৃহীনি এবং অনেকগুলো সুসন্তানের গর্বিত জননী।
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি এক কন্যা সন্তানের জনক। তার স্ত্রী একটি রাষ্ট্রীয় কর্পোরেশনের পদস্ত কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছেন এবং একমাত্র কন্যা সাফওয়ানা নাওয়াল রাইকা ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ এ অধ্যায়নরত।
তিনি বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি (বিইএ), নিকেতন সোসাইটি, গুলশান এবং চট্টগ্রাম সমিতি, ঢাকা এর আজীবন সদস্য।
নিজ এলাকায় জনগণের নিকট অতীব সজ্জন হিসেবে পরিচিত সাহাব উদ্দীন এলাকার প্রয়োজনে সাধ্যমত সহযোগীতার হাত বাড়ান।

অনুভুতি প্রকাশ করতে গিয়ে সাহাব উদ্দীন বলেন, আলহামদুলিল্লাহ। বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আমাকে পরিচালক পদে উন্নীত করায় আনন্দিত। অবিরাম সমর্থনের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ও সকলের প্রতি আমি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here