বিএনপির নুরুল আমিন প্রার্থীতা ফিরে পাবেন আশা তৃণমূল নেতা-কর্মীদের

559

মিরসরাই প্রতিনিধি
আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী গৃহায়ন ও গনপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী কে হচ্ছেন? ধানের শীষ কার হাতে যাচ্ছে? এই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে বিএনপি নেতা-কর্মী সহ সাধারণ মানুষের মনে। অফিসপাড়া থেকে চায়ের দোকানে চলছে আলোচনা-সমালোচনা আর চুলছেড়া বিশ্লেষণ।
এই আসনে বিএনপি মিরসরাই উপজেলা পরিষষদের চেয়ারম্যান (সাময়িক বরখাস্তকৃত ও সদ্য পদত্যাগ করা ) ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক নুরুল আমিনকে দলীয় প্রার্থীর মনোনয়ন দেন। বিকল্প প্রার্থী হিসেবে চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন আহাম্মেদ ও ব্যবসায়ী লায়ন মনিরুল ইসলাম ইউসুফকে রাখা হয়েছে।

গত ২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই বাচাইয়ের শেষে বৈধ ঘোষনা করা হয়েছে লায়ন মনিরুল ইসলাম ইউসুফ ও কামাল উদ্দিন আহম্মেদ এর মনোনয়নপত্র। বিএনপির মনোনীত অন্য প্রার্থী নুরুল আমিনের মনোনয়নপত্র প্রথমে স্থগিত ও পরে বাতিল ঘোষণা করেছেন চট্টগ্রাম জেলা রিটানিং কর্মকর্তা। উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগের মন্ত্রণালয় প্রেরিত কোন চিঠি দেখাতে না পারায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কর্মকর্তা রাকিব উজ্জামান।
এদিকে নুরুল আমিন চেয়ারম্যানের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় হতাশ বিএনপি নেতা-কর্মীরা। তাদের দাবী বিএনপির দূর্দিনে মাঠে ছিলেন নুরুল আমিন চেয়ারম্যান। তাঁর জনপ্রিয়তার পাশপাশি বিশাল কর্মী বাহিনী রয়েছে। তিনি ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফের সাথে ফাইট করতে পারবেন। অন্য প্রার্থীদের গত দশ বছরে মাঠে দেখা যায়নি। তারা নেতা-কর্মীদের ভালো করে চেনেন না। তাদেরও তৃণমূলের অনেকে চেনেন না। নেতা-কর্মীদের আশা নির্বাচন কমিশনের আপিল করে প্রার্থীতা ফিরে পাবেন তিনি।
প্রার্থীতা ফিরে পেতে আজ বুধবার নির্বাচন কমিশনের নিকট আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন নুরুল আমিন।
জানা গেছে, শুধু নুরুল আমিন নয় সারা দেশে ২৫ জন উপজেলা চেয়ারম্যানের মনোনয়নপত্র অবৈধ ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। কারণ দেখানো হয়েছে তারা উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগের মন্ত্রনালয় স্বাক্ষরিত কোন চিঠি দেখাতে পারেনি।
উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক গাজী নিজাম উদ্দিন বলেন, ২৭ নভেম্বর উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগের নির্দেশ আসার পর নুরুল আমিন পদত্যাগের জন্য জেলা রিটানিং কর্মকর্তা ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ে আবেদন করেছেন। তাঁর রিসিভ কপি আমরা দেখিয়েছে। কিন্তু মন্ত্রনালয় থেকে কোন চিঠি না দেখাতে পারার অজুহাতে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। আশা করছি নির্বাচন কমিশনে আপিল করার পর প্রার্থীতা ফিরে পাবেন নুরুল আমিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here