মিরসরাই বিএনপির ১৬ ইউনিয়ন ও দুই পৌরসভার নেতৃবৃন্দের মতবিনিময় সভা সম্পন্ন

437

 

নিজস্ব প্রতিনিধি

মিরসরাই উপজেলার ১৬ টি ইউনিয়ন ও দুই পৌরসভা নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার ( ২৭ সেপ্টেম্বর) উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক মোহাম্মদ আলমগীরের সভাপতিত্বে ও গাজী নিজাম উদ্দিনের সঞ্চালনায় নির্বাচন পরবর্তী মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিগত নির্বাচনে চট্টগ্রাম-১ মিরসরাই আসনে বিএনপির প্রার্থী নুরুল আমিন।

সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন বারইয়ারহাট পৌরসভা বিএনপির আহবায়ক দিদারুল আলম মিয়াজি।

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন উত্তর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি জাহেদুল আফসার জুয়েল, উত্তর জেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক আব্দুর রহিম বেলাল, উত্তর জেলা যুবদলের সহ সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার মাহমুদ জিপসন,মিরসরাই উপজেলা যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক শাহীনুল ইসলাম স্বপন,মিরসরাই উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি সরওয়ার হোসেন রুবেল। এসময় বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌরসভা থেকে  উপস্থিত ছিলেন

বারইয়ার পৌরসভার যুগ্ম আহবায়ক কামরান সরওয়ার্দী,নুরুর আফছার,মীর জহির,আবুল খায়ের।
মিরসরাই পৌরসভা রেদোয়ানুল হক, আলমগীর হোসেন, জাহিদ হোসেন, মহিউদ্দিন।

১ নং করের হাট ইউনিয়ন থেকে একরামুল হক বিপ্লব, ইয়াসিন মিজান, মোঃ ফারুক।
২ নং হিঙ্গুলী ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, সেক্রেটারী নাজমুল হক সোহাগ,রফিকুল ইসলাম।


৩ নং জোরারগঞ্জ ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাকসুকুর রহমান সোহান।
৪ ধুম ইউনিয়ন থেকে মোর্শেদ আলম, রফিকুল ইসলাম, মেজবাউল ইসলাম, মোজাম্মেল হোসেন।
৫ নং ওসমানপুর ইউনিয়ন থেকে বিএনপির আহ্বায়ক মোশারফ হোসেন লাভলু, মোশাররফ হোসেন দুলাল, নুরুল মোস্তফা, মহসিন সম্রাট।


৬ নং ইছাখালী ইউনিয়ন থেকে আবু নোমান ভূূঁইয়া, মাজহারুল ইসলাম চৌধুরী, মঞ্জুরুল হক, গোলাম মাওলা বাবলু।
৭ নং কাটাছড়া ইউনিয়ন  থেকে উপজেলা কৃষকদলের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম মেম্বার, যুবদল নেতা ওমর ফারুক, আলা উদ্দীন, রুবেল হোসেন।
৯ নং দুুুুর্গাপুর ইউনিয়ন থেকে  আজমল হক
১০ নং মিঠানালা ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি খন্দকার মোশাররফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আবু মনসুর, যুবদল নেতা মোহাম্মদ হানিফ।
১১ নং মঘাদিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি কামরুল আলম, নাজমুল হোসেন, গোলাম রব্বানী।
১২ নং খৈয়াছড়া ইউনিয়ন থেকে থানা কৃষকদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আলম মেম্বার, সাবেক উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি শাহ মোহাম্মদ ফোরকান।
১৩ নং মায়ানী ইউনিয়ন থেকে সাবেক চেয়ারম্যান  আবু মুছা, কফিল উদ্দীন বাবু
১৪  নং হাইতকান্দি ইউনিয়ন থেকে  আবব্দুর রহিম বেলাল,সদ্য কারামুক্ত যুবদল নেতা মোহাম্মদ লিটন।
১৫ নং ওয়াহেেদপুর  ইউনিয়ন থেকে আবুল হোসেন মানিক,ইমাম হোসেন, মনসুর,বাবলু,লোকমান।
১৬ নং সাহেরখালী ইউনিয়ন থেকে  দিদারুল আলম মিলন, মামুদুল হক, নুরুল আমিন, মহিউদ্দিন, সরওয়ার, সালাউদ্দিন, হাসান,শাহীন প্রমুখ

প্রধান অতিথি নুরুল আমিন তার বক্তব্যে বলেন, দেশে এখন কোন নিয়ন্ত্রন নেই। নিয়ন্ত্রনহীন ভাবে চলছে। ক্যাসিনো ব্যবসায়ী আর জুয়াড়িদের বিরুদ্ধে সরকার লোক দেখানো অভিযান চালাচ্ছে। বর্তমান সরকার রহস্যজনক কারণে গত দশদিন আগে ক্যাসিনো, জুয়া এবং মাদক বিরোধী অভিযান শুরুর পর আমরা বলেছিলাম লোক দেখানোর জন্য এসব করা হচ্ছে। এখন সেটাই বাস্তবে প্রমাণ হচ্ছে। ক্রমেই হাস্যকর হয়ে উঠেছে এই কথিত অভিযান। ঢাক-ঢোল-তবলা বাজিয়ে কয়েকটা ‘যদু-মধু’ আটক করার পর এখন মন্ত্রীরা চিৎকার দিয়ে বিএনপির ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। অথচ এখনো মূল অপরাধীরা অধরাই থেকে গেছে। এই দেশ বেশিদিন অনাচার-অবিচার-অন্যায়-দুর্নীতি সহ্য করেনি, ভবিষ্যতেও করবে না। এদের ভয়াবহ পরিণতি এগিয়ে আসছে। সরকার অন্যায়ভাবে বারবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রেখেছে। কিন্তু জনগন জেগে উঠলে তাদের রক্ষা হবে না। তাই নেতা কর্মীদের প্রস্তুত থাকতে বলেছেন কারণ, দেশনেত্রীর মুক্তি ও গণতন্ত্র রক্ষার  আগামী আন্দোলন সংগ্রামে সকল নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here