সফল হলেন সেই বেলায়েত শেখ

9

 

অবশেষে সফলতার দেখা পেলেন গাজীপুরের ৫৫ বছর বয়সী বেলায়েত শেখ। বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে উত্তীর্ণ হয়েছেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কিছুটা সুযোগ-সুবিধা পেলেই ভর্তি হবেন এ বিশ্ববিদ্যালয়ে।

সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন বেলায়েত শেখ। দুপুর ২টায় ফলাফল প্রকাশিত হলে ৬৮ নম্বর পেয়ে উত্তীর্ণ হন তিনি।

এরআগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে কৃতকার্য হতে পারেননি বেলায়েত শেখ। তবে সুযোগ-সুবিধা পেলে এবার বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়েই ভর্তি হবেন বলে জাগো নিউজকে জানিয়েছেন তিনি।

 

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে উত্তীর্ণ হয়ে খুশিতে আবেগাপ্লুত হয়ে বেলায়েত বলেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ, অনেক ব্যর্থতার পর আজ সফলতার মুখ দেখতে পেয়েছি। বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬৮ নম্বর পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছি আমি।’

তিনি আরও বলেন, ‘বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় কৃতকার্য হলেও ভর্তি নিয়ে সংশয়ে রয়েছি। বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ায় ভর্তি ফি থেকে শুরু করে সেশন ফি অনেক বেশি হওয়ায় পড়াশোনা চালিয়ে যেতে অনেক টাকা-পয়সার প্রয়োজন। কিন্তু আমার এত টাকা-পয়সা নেই। ভর্তি ফি থেকে শুরু করে সেশন ফি পর্যন্ত আমাকে সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিত আবেদন জমা দিয়েছি। এখন তারা অনুমোদন দিলেই ভর্তি হয়ে যাবো ইনশাআল্লাহ।’

 

বেলায়েত শেখ বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সুনজরই পারে আমার স্বপ্নকে পূরণ করতে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছাড়াও যদি কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান আমার পাশে দাঁড়ায় আমি উপকৃত হবো। আমি আমার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে চাই।’

১৯৬৮ সালে জন্ম নেওয়া উদ্যমী এই মানুষটির ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনার প্রতি ছিল প্রবল আগ্রহ। প্রবল আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও দারিদ্র্যের কারণে স্বপ্ন অধরাই থেকে যায়। ১৯৮৩ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন বেলায়েত। কিন্তু নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে উচ্চশিক্ষা নেওয়ার স্বপ্ন জলাঞ্জলি দিতে হয় তাকে। ২০১৭ সালে ৫০ বছর বয়সে ভর্তি হন নবম শ্রেণিতে।

চলতি বছর ঢাকা মহানগর কারিগরি কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিকে (এইচএসসি-ভোকেশনাল) জিপিএ ৪.৫৮ নিয়ে পাস করেন বেলাযেত। এরআগে ২০১৯ সালে বাসাবোর দারুল ইসলাম আলিম মাদরাসা থেকে জিপিএ ৪.৪৩ পেয়ে মাধ্যমিক সমমান দাখিল (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তিনি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here